Feedback

জাতীয়

ভিন্নমতের কারণেই ঢাবি অধ্যাপককে চাকরিচ্যুত : রিজভী

ভিন্নমতের কারণেই ঢাবি অধ্যাপককে চাকরিচ্যুত : রিজভী
September 19
04:34pm
2020
মোশারফ
Kendua, Netrokona:
Eye News BD App PlayStore

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘আজকে শুধু ভিন্নমতের জন্যই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খান ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এ কে এম ওয়াহিদুজ্জামানকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। কিন্তু কেন? তাঁরা কি কোনো অন্যায় করেছেন? দুর্নীতি করেছেন? তাঁদের চাকরিচ্যুত করার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের যে আইন রয়েছে, সে আইনের মধ্যে কি তাঁরা পড়েছেন? নৈতিক স্খলন হলে চাকরিচ্যুত করা যায়।’ 

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আজ শনিবার সকালে এক মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন রিজভী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খান ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এ কে এম ওয়াহিদুজ্জামানকে চাকরিচ্যুতির প্রতিবাদে মানববন্ধনের আয়োজন করে ফিউচার অব বাংলাদেশ নামে একটি সংগঠন। সংগঠনের সভাপতি শওকত আজিজের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ ও মৎস্যজীবী দলের সদস্য সচিব আবদুর রহিম। সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট ফয়সাল প্রধানের পরিচালনায় মানববন্ধনে আরো বক্তব্য দেন জামাল হোসেন, কেজি সেলিম, সোহেল খান, রেজাউল হোসেন অনিক, পাভেল মোল্লা, আল আমিন হোসেন প্রমুখ। 

রিজভী বলেন, ‘ড. মোর্শেদকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে কেন, আপনারা জানেন। তিনি জিয়াউর রহমানের বিষয়ে একটি প্রবন্ধ লিখেছেন সে জন্য। এটাই হচ্ছে অপরাধ। অধ্যাপক ওয়াহিদুজ্জামান রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে ফেসবুকে লিখতেন। এ জন্য তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করা হলো। আর চাকরিচ্যুত করা হলো ড. মোর্শেদকে। ওয়াহিদুজ্জামানের বিরুদ্ধে মামলা নিষ্পত্তি হয়নি। তার আগেই তাঁকে চাকরিচ্যুত করা হলো। অর্থাৎ সরকার বিরোধী দল ও মতকে নিশ্চিহ্ন করার জন্য এত দিন যে কর্মসূচি নিয়েছে, সেটা হলো গুম, অদৃশ্য ও বিচারবহির্ভূত হত্যা। এতেও তারা শান্তি পাচ্ছে না।’  রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘এখন তারা কী করছে, ওদেরকে শেষ করে দিতে হবে। ওরা যেন না খেয়ে থাকে। ক্ষুধার্ত আর অনাহারে থাকে।

তাই ভিন্নমতের লোকদের তাদের কর্মকাণ্ড থেকে সরিয়ে দিতে হবে। শিক্ষকদের কর্মকাণ্ড কী? ছাত্রদের পড়ানো, শিক্ষকতা করা। ড. মোর্শেদ তাই করতেন। তিনি ম্যাট্রিক থেকে মাস্টার ডিগ্রি পর্যন্ত সবগুলোই ফার্স্ট ক্লাস পাওয়া। ম্যাট্রিক ও ইন্টারমিডিয়েটে স্ট্যান্ড করেন। তাঁকে বহিষ্কার করা হলো। ওয়াহিদুজ্জামানও সবগুলোতে প্রথম শ্রেণিপ্রাপ্ত শিক্ষক। না হলে তো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়া যায় না। ড. মোর্শেদের অতুলনীয় মেধা। সে জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো দেশের বৃহত্তম প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনি শিক্ষক। তাঁকে ভিন্নমতের কারণেই চাকরিচ্যুত করা হয়েছে।’  রিজভী বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় একটি স্বায়ত্তশাসিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। তার একটি আলাদা স্বাধীনতা আছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এতই মোসাহেব হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ ভিসি সাহেব ড. মোর্শেদকে চাকরিচ্যুত করার ব্যাপারে আইনকানুনের তোয়াক্কা করেননি। বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো আইনে ড. মোর্শেদ ও ওয়াহিদুজ্জামানকে চাকরিচ্যুত করা যায় না। এখানে আইনের দরকার পড়েনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো বিধিনিষেধের দরকার পড়েনি। কোনো ন্যায়-ন্যায্যতার দরকার হয়নি। দরকার পড়েছে একজন ব্যক্তির নির্দেশ। সেই হুকুম তামিল করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি। আগে দেখতাম শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছে, কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির অনুমতি ছাড়া পুলিশ ঢুকতে পারত না। এখন অবলীলায় ঢুকে যায়। এখন ভিসি কোনো আইনের তোয়াক্কা না করেই চাকরিচ্যুত করছে যারা ভিন্ন মতাবলম্বী, বিএনপি করে বা অন্য কোনো মতে বিশ্বাসী। এই হচ্ছে আজকের অবস্থা।

অর্থাৎ বিএনপির লোক খেতে পারবে না, তোমাদের খাওয়ার অধিকার নেই, চলাচলের অধিকার নেই, মতপ্রকাশের অধিকার নেই, বাঁচার অধিকার নেই।’  বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আমার যদি চাকরি না থাকে, খাব কী করে? সন্তানদের পড়ালেখা করাব কী করে? সরকারকে বলব, এই অমানবিকতার অবসান ঘটান। ভাবছেন, আপনার অনেক ক্ষমতা, ধরে নিয়ে গুম করবেন, জেলে ভরে দেবেন। কিন্তু কখন যে আপনার সিংহাসন চোরাবালির মধ্যে ডুবে যাবে, আপনি সেটা টেরই পাবেন না। অবিলম্বে ড. মোর্শেদ ও ওয়াহিদুজ্জামাকে চাকরিতে পুনর্বহালের দাবি জানাচ্ছি।’  অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ বলেন, ‘দেশের গণতন্ত্র ধ্বংস করা হয়েছে। এখন শিক্ষাব্যবস্থার ওপর আঘাত হেনেছে। শিক্ষক জাতির মেরুদণ্ড। কিন্তু স্বাধীন মতপ্রকাশের কারণে তাঁদের বহিষ্কার করা হয়েছে। যেটা চরম অন্যায় ও অমানবিক। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ভিন্নমতের শিক্ষকদের দমন করা হচ্ছে। আসুন, ঐক্যবদ্ধ হয়ে স্বৈরাচারী সরকারের পতন ঘটাই।’

All News Report

Add Rating:

0

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

কুলাউড়ার রবিরবাজারে ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ হারালো শিশু

কুলাউড়ার রবিরবাজারে ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ হারালো শিশু

প্রেম করে  বিয়ে,পরকীয়া করে সন্তানসহ টাকা নিয়ে উধাও প্রবাসীর স্ত্রী

প্রেম করে বিয়ে,পরকীয়া করে সন্তানসহ টাকা নিয়ে উধাও প্রবাসীর স্ত্রী

কবরস্থানে নড়ে  ওঠা সেই শিশু মারা গেছে

কবরস্থানে নড়ে ওঠা সেই শিশু মারা গেছে

স্ত্রীর কাছ থেকে তালাকের নোটিশ পেয়ে  দুধ দিয়ে গোসল করলেন স্বামী

স্ত্রীর কাছ থেকে তালাকের নোটিশ পেয়ে দুধ দিয়ে গোসল করলেন স্বামী

তাড়াইলে জাতীয় পার্টির নেতা ইয়াবাসহ আটক

তাড়াইলে জাতীয় পার্টির নেতা ইয়াবাসহ আটক

বরিশালে অচেতন অবস্থায় নারী কর্মকর্তাকে নদী থেকে উদ্ধার

বরিশালে অচেতন অবস্থায় নারী কর্মকর্তাকে নদী থেকে উদ্ধার

নবাবগঞ্জে প্রেমিকের বাড়িতে টিভি দেখতে গিয়ে একাধিক বার ধর্ষণের শিকার কলেজ ছাত্রী

নবাবগঞ্জে প্রেমিকের বাড়িতে টিভি দেখতে গিয়ে একাধিক বার ধর্ষণের শিকার কলেজ ছাত্রী

পত্রিকায় হারানো বিজ্ঞপ্তি দেখে এগিয়ে যেতেন ভুয়া ওসি

পত্রিকায় হারানো বিজ্ঞপ্তি দেখে এগিয়ে যেতেন ভুয়া ওসি

ভোতা অস্ত্রের আঘাতে রায়হানের  মৃত্যু হয়েছে

ভোতা অস্ত্রের আঘাতে রায়হানের মৃত্যু হয়েছে

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ আরও ঘণীভূত নিম্নচাপে রূপ নেওয়ার আশঙ্কা

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ আরও ঘণীভূত নিম্নচাপে রূপ নেওয়ার আশঙ্কা

ঢাকা থেকে রোম সরাসরি একটি ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স

ঢাকা থেকে রোম সরাসরি একটি ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স

মিঠাপুকুরে স্বাক্ষর জালিয়াতির মাধ্যমে ৩লক্ষাধিক টাকার বিল উত্তোলনের অভিযোগ

মিঠাপুকুরে স্বাক্ষর জালিয়াতির মাধ্যমে ৩লক্ষাধিক টাকার বিল উত্তোলনের অভিযোগ

যুব অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক তারেক রহমানকে ডিবি পরিচয়ে  তুলে নেওয়ার অভিযোগ

যুব অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক তারেক রহমানকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়ার অভিযোগ

আমতলীতে অতিবর্ষনে জনজীবন বিপর্যস্থ, জলাবদ্ধতায় তলিয়ে গেলে আমন ধানের ক্ষেত

আমতলীতে অতিবর্ষনে জনজীবন বিপর্যস্থ, জলাবদ্ধতায় তলিয়ে গেলে আমন ধানের ক্ষেত

নোয়াখালীতে অস্ত্রেরমুখে প্রবাসীর স্ত্রী ধর্ষণ, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার

নোয়াখালীতে অস্ত্রেরমুখে প্রবাসীর স্ত্রী ধর্ষণ, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার

সর্বশেষ

বঙ্গোপসাগরের লঘুচাপ নিম্মচাপে পরিণত, মোংলা বন্দর থেকে ২৪০ কিলোমিটার দুরত্বে অবস্থান

বঙ্গোপসাগরের লঘুচাপ নিম্মচাপে পরিণত, মোংলা বন্দর থেকে ২৪০ কিলোমিটার দুরত্বে অবস্থান

সারদেশে বৃষ্টি চলবে, জলোচ্ছ্বাসের সতর্কতা

সারদেশে বৃষ্টি চলবে, জলোচ্ছ্বাসের সতর্কতা

দিনাজপুরে তামাকের আইন বহির্ভুত বিজ্ঞাপন

দিনাজপুরে তামাকের আইন বহির্ভুত বিজ্ঞাপন

বৈরী আবহাওয়া : বরিশালের অভ্যন্তরীণ রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ

বৈরী আবহাওয়া : বরিশালের অভ্যন্তরীণ রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ

ইরান কি সত্যিই মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করছে?

ইরান কি সত্যিই মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করছে?

বগুড়ায় সাবেক স্ত্রীকে হত্যা, স্বামীর যাবজ্জীবন

বগুড়ায় সাবেক স্ত্রীকে হত্যা, স্বামীর যাবজ্জীবন

নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার সাথে সব ধরনের নৌ-যোগাযোগ বন্ধ

নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার সাথে সব ধরনের নৌ-যোগাযোগ বন্ধ

শেরপুরে পূজা মন্ডপে ভ্রাম্যমাণ টহলে আনসার সদস্যরা

শেরপুরে পূজা মন্ডপে ভ্রাম্যমাণ টহলে আনসার সদস্যরা

বন কিনে দেয়ার লোভ দেখিয়ে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণ

বন কিনে দেয়ার লোভ দেখিয়ে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণ

চুনারুঘাটে রাতে গাছ কর্তন, থানায় ডায়েরী

চুনারুঘাটে রাতে গাছ কর্তন, থানায় ডায়েরী

কি অবাক কান্ড! গাছেই ঝুলছে স্মার্টফোন

কি অবাক কান্ড! গাছেই ঝুলছে স্মার্টফোন

শিল্পী আকবরের কিডনি দ্রুত নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, আর তাই দোয়া চাইল তার পরিবার

শিল্পী আকবরের কিডনি দ্রুত নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, আর তাই দোয়া চাইল তার পরিবার

নামাজ পড়তে অসুবিধা হওয়ায় অভিনয় ছেড়ে দিয়েছেন অভিনেত্রী মুক্তি

নামাজ পড়তে অসুবিধা হওয়ায় অভিনয় ছেড়ে দিয়েছেন অভিনেত্রী মুক্তি

রাজধানীর ঝুলন্ত তারের সমস্যা, অপসারণ সমাধানে নেয়া হচ্ছে সমন্বিত উদ্যোগ

রাজধানীর ঝুলন্ত তারের সমস্যা, অপসারণ সমাধানে নেয়া হচ্ছে সমন্বিত উদ্যোগ

শীত আসন্ন, আগাম সবজির চারা উৎপাদন, বিক্রিও প্রায় শেষ

শীত আসন্ন, আগাম সবজির চারা উৎপাদন, বিক্রিও প্রায় শেষ