Feedback

জাতীয়

পরিচয় ভিত্তিক বিদ্বেষ নয়, মানুষের মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত হোক

পরিচয় ভিত্তিক বিদ্বেষ নয়, মানুষের মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত হোক
September 13
08:02am
2020
Md. Asir Uddin
Patnitala, Naogaon, প্রতিনিধি:
Eye News BD App PlayStore

মানুষ সামাজিক জীব হিসেবে মিলেমিশে একসাথে বসবাস করা তার চিরায়ত স্বভাব। আমাদের সামাজীকিরণ প্রক্রিয়ার শুরুতে বিদ্বেষপূর্ণ মনোভাব ছিল না। বর্তমানে সমাজে শ্রেণী, পেশা, ধর্ম, মতবাদ প্রভৃতি কারণে আমরা বিভক্ত হয়ে পড়েছি। আমাদের এই বিভক্ত হয়ে পড়া সকল সমাজে সমান নয়। কোথাও কোথাও বিভক্তি যেন সামাজিক আইনে পরিণত হয়েছে। নওগাঁ জেলার পত্নীতলা উপজেলাধীন কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের সুবরাজপুর গ্রামে প্রায় ৪৫০ টি পরিবারের বসবাসএখানে বিভিন্ন  ধর্মের, বর্ণের পেশাজীবি মানুষের বসবাসএখানে হিন্দু মুসলিম এবং আদিবাসি মিলে মোট ২৪৫২ জন মানুষ বসবাস করে আসছে। এখানে ২০টি পরিবার সমাজের দৃষ্টিতে নিম্নবর্ণ হিসেবে বিবেচিত। তারা ধর্মীয়ভাবে সনাতন ধর্ম প্রতিপালন করে। পেশায় কর্মকার এবং ঋষি বা মুচি। গ্রামে বহুদিন ধরে এই পরিবারগুলোকে অসম্মান এবং অবজ্ঞা করা হয়ে আসছে। শিশুদের শেখানো হয় তারা নোংরা, নিচু তাদের সাথে মেশা যাবে না। শিশুরাও মনে ঘৃণা নিয়েই বড় হতে থাকে। পরিবারগুলোর শিশুরা স্কুলে গেলেও একই বেঞ্চে বসা সম্ভবপর ছিল না। তারা সুবরাজপুর মোড়ের কোন দোকানে বসে চা খেতে পারতো না। মাঠে খেলাধুলার সময়ও তাদের অংশগ্রহণ ছিল না। এভাবে যুগের পর যুগ চলে যাচ্ছে।


বর্তমান প্রজন্মের নিকট এটি এখন রীতি হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমনে ইয়ূথ ফোরামের সদস্যরা বিভিন্ন পাড়ায় মানুষের সাথে আলোচনা করে তখন বিষয়টি তাদের নজরে আসে। ইয়ূথ লিডার রণির নেতৃত্বে পরিচালিত প্রচারাভিযান শেষে তারা জরুরীভিত্তিতে গ্রামভিত্তিক ইয়ূথ ফোরামের সভা করে সেখানে ধর্ম এবং পেশার কারণে পরিচয় ভিত্তিক বিদ্ভেষ এবং বঞ্চনার বিষয়ে আলোচনা করা হয়।তারা গ্রামের প্রবীনদের সাথে আলাপ করে কারণ অনুসন্ধ্যান করার চেষ্টা করে।অন্যকোন কারণ ছিল না। শুধুমাত্র বর্ণে ছোট বলেই তাদের অবজ্ঞা করা হয়। সভায় তারা পরিকল্পনা প্রনয়ন করে, আমাদের গ্রামে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষ বসবাস করায় তাদের মধ্যে সম্প্রীতি নেই, যার ফলে আমাদের  সম-উন্নয়ন নেই এমতাবস্থায় ইয়ুথ ইউনিট কো অর্ডিনেটর মমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে ইউনিটের সদস্য জিমান,রাখি, ইতি,পূর্নিমা, মৌসুমী, ভরৎ,হাবিবুর, তারেক, রানা, সবুজ, রুবেল, আসলাম,জোনায়েদ লাভলীসহ সকলে মিলে শপথ করলেন আমরা আমাদের গ্রামের সকল দ্বন্দ কলহ, ঘৃণা বিদ্বেষ  দূরীভূত করে একটি আদর্শ গ্রাম হিসেবে গড়ে তুলতে চাইসর্বপ্রথম তারা নিজেরা সিদ্ধান্ত নিলেন আমাদের গ্রামে যারা নেতৃত্ব দেয় তাদের সাথে আমাদের বসা দরকার


তার আগে তারা হিন্দুদের সাথে বসেন এবং তাদের সমস্যাগুলো শোনেন। ইয়ূথ ইউনিটে ৪জনকে সম্পৃক্ত করে। প্রথমে নিজেরা তাদের সাথে মিশে এবং সমাজের সকল কাজে তাদের মেশার সুযোগ করে দেয়। তারপর তারা গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করে। স্কুল কলেজ বন্ধ থাকায় বারংবার ছোট ছোট সভা করে আলোচনার কেন্দ্রে বিদ্বেষকে নিয়ে আসে। বাজারে একসাথে গিয়ে চায়ের আড্ডা দেয়। ইতোমধ্যে মানুষের মধ্যে গুঞ্জনও শুরু হয়। তরুণদের একতাবদ্ধতা এবং বিরোধপূর্ণ বিষয়ের শান্তিপূর্ণ সমাধানের পথে সামাজিক গুঞ্জন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারেনি। এখানে দীর্ঘদিনের অবজ্ঞার সংস্কৃতি পিরবর্তিত হতে শুরু করেছে। এখন দোকানগুলোতে আলাদা চায়ের কাপ কিংবা পানির গ্লাস আর নেই। সবাই হোটেলে, চায়ের দোকানে বসে খেতে পারে। জুতো সেলাই পেশা হলেও ইয়ূথরা তাদের কাজকে সম্মান করতে মানুষকে উৎসাহ দিয়ে আসছে। পাশাপাশি সকলকে উৎসাহ দিচ্ছে মনের মধ্যে যেন সংশয় পুষে না রাখে। ঋষি পরিবারের ইয়ূথ লিডার ভরৎ বলেন “আমার ২০ বছর বয়সে প্রথম কোন মিটিং এ উপস্থিত হয়ে কথা বলতে পারলাম। আমার এখন খুব খুশি লাগছে, আমরা একই সমাজের মানুষ হিসেবে বিবেচিত হচ্ছি।


এখানে আলো, বাতাস, প্রকৃতিতে তো বিভক্তি নেই? আমরা আর ছোট জাত এটা ভুলে গিয়ে সমাজের জন্য একত্রে কাজ করছি।” সুবরাজপুর বাজারের দোকানদান দিলিপ কুমার বলেন “আমরা সকলের জুতা সেলাই করে টাকা উপার্জন করি। টাকায় তো লিখা থাকে না, এটা বড়লোকের টাকা। আমাদের যেভাবে দেখা হয়, তাতে কষ্ট লাগে। ইদানিং মানুষ আমাদের সাথে ভালো ব্যবহার করছে। আমাদের ছেলে মেয়েরা সবার সাথে মিশতে পারছে। আমাদের খুব আনন্দ হচ্ছে। আমরা একই সৃষ্টার সৃষ্টি হিসেবেবিবেচিত হই। সবাইকে মানুষ হিসেবে বিবচেনা করি।” ইয়ূথ লিডার মমনিুল বলে “আমরা কখনও আমলে আনি নাই যে হিন্দুপাড়ার মানুষদের হিন্দু বলে, নিচু জাত বলে বলে আমাদের মনটাকে তাদের বিষয়ে বিষিয়ে তুলেছে।


 আমরা সেই ধারণা পরিবর্তন করতে সক্ষম হয়েছি। আমরা সবেমাত্র একত্রে মেশার সুযোগ পেলাম। সামনে অনেক পথ পাড়ি দেতে হবে।” লারী নেত্রী লাভলী চৌধুরী ইয়ূথদের সাহস এবং উৎসাহ যুগিয়েছেন। তিনি বলেন “আমাদের গণগবেষণা সমিতিতে হিন্দুপাড়ার ৬টি পরিবারকে আমরা যুক্ত করেছি। তাদের আচরণ খুবই ভালো এবং প্রশংসিত। আমাদের তো কোন সমস্যা হচ্ছে না। তাহলে সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করা কি সম্ভব নয়। এটা এখন পাল্টেছে। আমাদের আরো পাল্টাতে হবে।”
তরুণদের উদ্যোগে ক্রমাগত পরিবর্তিত হচ্ছে পরিবার এবং সমাজ। আমাদের মানসিকতার ইতিবাচক এই ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পরিবর্তন সমাজ সংস্কার করে দিচ্ছে। সংঘবদ্ধ তরুণ শক্তিকে কাজে লাগিয়ে সকলের মর্যাদার সমাজ প্রতিষ্ঠায় প্রত্যেকটি উদ্যোগ ইতিবাচক ভুমিকা রাখুক। আর আমাদের সামাজীকীররণের মধ্যে যে ভুল বার্তাগুলো ছড়িয়ে আছে তা দূরীভূত হোক। 

All News Report

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদ উপ-নির্বাচনে ৩ জন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র দাখিল

জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদ উপ-নির্বাচনে ৩ জন প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র দাখিল

শাকিল বাড়ি ফিরেছে,তবে মৃত

শাকিল বাড়ি ফিরেছে,তবে মৃত

৩ মাস ধরে গৃহকর্মীকে ধর্ষণ, কারাগারে অভিযুক্ত

৩ মাস ধরে গৃহকর্মীকে ধর্ষণ, কারাগারে অভিযুক্ত

ধর্ষণের পর টাকায় মীমাংসা

ধর্ষণের পর টাকায় মীমাংসা

প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইতিহাস ঐতিহ্যের ২৫০ বছরের পুরোন জমিদার বাড়ি ও মসজিদ

প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইতিহাস ঐতিহ্যের ২৫০ বছরের পুরোন জমিদার বাড়ি ও মসজিদ

সৌদি ভিসার ২৪ দিন মেয়াদ বাড়লঃ নিশ্চিত করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সৌদি ভিসার ২৪ দিন মেয়াদ বাড়লঃ নিশ্চিত করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

অবশেষে পদ ছাড়ছেন বেফাক মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস!

অবশেষে পদ ছাড়ছেন বেফাক মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস!

আন্দোলনকারীদের ভিসা বাতিল করতে পারে সৌদি সরকার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আন্দোলনকারীদের ভিসা বাতিল করতে পারে সৌদি সরকার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

দল মত নির্বিশেষ ইসলামকাটি ইউনিয়নে শেখ আব্দুল আজিজ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হোক

দল মত নির্বিশেষ ইসলামকাটি ইউনিয়নে শেখ আব্দুল আজিজ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হোক

দেশের বাজারে বর্তমান স্বর্ণের দাম

দেশের বাজারে বর্তমান স্বর্ণের দাম

স্মৃতির পাতায় অমলিন প্রিয় ক্যাম্পাস

স্মৃতির পাতায় অমলিন প্রিয় ক্যাম্পাস

ব্রহ্মপুত্রের ভাঙ্গনে মুছে যাওয়ার সম্ভাবনা রৌমারী’র মানচিত্র!

ব্রহ্মপুত্রের ভাঙ্গনে মুছে যাওয়ার সম্ভাবনা রৌমারী’র মানচিত্র!

স্বামীর বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ, গ্রেফতার পুনম পান্ডের স্বামী

স্বামীর বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ, গ্রেফতার পুনম পান্ডের স্বামী

এবার ভাইরাল স্বাস্থ্যের গাড়িচালক মালেকের দরজা

এবার ভাইরাল স্বাস্থ্যের গাড়িচালক মালেকের দরজা

মনিরামপুরের সিনেমাহল ও পার্ক এ চলছে অশ্লীলতা

মনিরামপুরের সিনেমাহল ও পার্ক এ চলছে অশ্লীলতা

সর্বশেষ

যারা সৌদি যেতে পারবে না তাদের বিষয়ে আলোচনা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

যারা সৌদি যেতে পারবে না তাদের বিষয়ে আলোচনা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পাপিয়া দম্পতির যাবজ্জীবন সাজা দাবি রাষ্ট্রপক্ষের

পাপিয়া দম্পতির যাবজ্জীবন সাজা দাবি রাষ্ট্রপক্ষের

বগুড়ায় নতুন আক্রান্ত ৩১, সুস্থ ২৩

বগুড়ায় নতুন আক্রান্ত ৩১, সুস্থ ২৩

নীচু  -হাসান কবীর

নীচু -হাসান কবীর

ডেসটিনি গ্রুপের রফিকুল আমিনের জামিন শুনানি শেষ, আদেশ রোববার

ডেসটিনি গ্রুপের রফিকুল আমিনের জামিন শুনানি শেষ, আদেশ রোববার

যুক্তরাষ্ট্রকে চীনের হুঁশিয়ারি !!

যুক্তরাষ্ট্রকে চীনের হুঁশিয়ারি !!

গঠনতন্ত্র মানলে বেফাকের শীর্ষ পদে কতটা সুযোগ আছে রাজনীতিকদের!

গঠনতন্ত্র মানলে বেফাকের শীর্ষ পদে কতটা সুযোগ আছে রাজনীতিকদের!

আগামীকাল রাজধানীর কিছু এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে

আগামীকাল রাজধানীর কিছু এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে

করোনা: সিলেটে ২৪ ঘণ্টায় পজিটিভ শনাক্ত ২৯, সুস্থ ৬১

করোনা: সিলেটে ২৪ ঘণ্টায় পজিটিভ শনাক্ত ২৯, সুস্থ ৬১

সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সঙ্গে ড. মোমেনের বৈঠক রোববার

সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সঙ্গে ড. মোমেনের বৈঠক রোববার

একদিনে করোনা শনাক্তের বিশ্ব রেকর্ড

একদিনে করোনা শনাক্তের বিশ্ব রেকর্ড

কোম্পানীগঞ্জে বিপুল পরিমাণ মদসহ কামিচুর গ্রেফতার

কোম্পানীগঞ্জে বিপুল পরিমাণ মদসহ কামিচুর গ্রেফতার

কানাইঘাটে কবর থেকে বের হচ্ছে সুগন্ধি, জনতার ভীড়

কানাইঘাটে কবর থেকে বের হচ্ছে সুগন্ধি, জনতার ভীড়

বাংলাদেশকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে অসচেতনতা

বাংলাদেশকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে অসচেতনতা

সব মাধ্যমিক স্কুলে ডিজিটাল একাডেমি হবে: প্রধানমন্ত্রী

সব মাধ্যমিক স্কুলে ডিজিটাল একাডেমি হবে: প্রধানমন্ত্রী