About Us
MD Emran
প্রকাশ ৩১/০৮/২০২০ ১২:৪৮এ এম

গুম হচ্ছে একদলীয় দুঃশাসনের নমুনা: ফখরুল

গুম হচ্ছে একদলীয় দুঃশাসনের নমুনা: ফখরুল Ad Banner

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, গুমের আতঙ্ক এখন দেশের সর্বত্র পরিব্যাপ্ত। দুঃশাসন থেকে উৎপন্ন হয় গুম ও বিচার বহির্ভূত হত্যার মত মানবতাবিরোধী হিংস্রতা। গুম হচ্ছে একদলীয় দুঃশাসনের নমুনা। আজ আন্তর্জাতিক গুম দিবস উপলক্ষে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে তিনি এ কথা বলেন। 

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ৩০ আগস্ট আন্তর্জাতিক গুম দিবস উপলক্ষে আমি হারিয়ে যাওয়া মানুষদের জন্য উদ্বেগ প্রকাশ করছি। তাদের পরিবারের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। বাংলাদেশে গুমের আতঙ্ক এখন সর্বত্র পরিব্যাপ্ত। দুঃশাসন থেকে উৎপন্ন হয় গুম ও বিচার বহির্ভূত হত্যার মত মানবতাবিরোধী হিংস্রতা। স্বৈরাচারী সরকারের গড়ে তোলা আইন প্রয়োগকারী সংস্থার পরিচয়ে বিরোধী দলের প্রতিবাদী নেতাকর্মীদের তুলে নিয়ে যাওয়া এখন নিত্যকার ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। গুম হচ্ছে একদলীয় দুঃশাসনের নমুনা। দেশে বর্তমান শাসকগোষ্ঠি ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে গুমকে তাদের প্রধান রাজনৈতিক কর্মসূচি করেছে। বিরোধী দল শূন্য একদলীয় কর্তৃত্ববাদী শাসন ব্যবস্থা টিকিয়ে রাখতে গুমকে পথের কাঁটা দূর করার প্রধান হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। এ নৃশংস গুমের শিকার হয়েছেন সংসদ সদস্য ইলিয়াস আলী, সাইফুল ইসলাম হিরু, চৌধুরী আলম, সুমন, জাকিরসহ অসংখ্য মানুষ। 

ফখরুল বলেন, আরেকটি অভিনব গুমের শিকার হয়েছেন সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহউদ্দিন আহমেদ। তাকে দুই মাস গুম করে রাখার পর পাচার করা হয়েছে অন্য দেশে। এই নতুন ধরনের ঘটনা দেশবাসীকে অজানা আতঙ্কে উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। রাষ্ট্র সমাজে মানুষের মধ্যে নিরাপত্তাহীনতার বোধ সৃষ্টির জন্যই গুমকে কৌশল হিসেবে ব্যবহার করে নিষ্ঠুর শাসকগোষ্ঠি। জনসমর্থনহীন ও ভোটারবিহীন সরকারের টিকে থাকার অবলম্বনই হচ্ছে গুম।

এই ধারা বয়ে চললে দেশ অরাজকতার ঘন অন্ধকারে ডুবে যাবে। মানুষের স্বাভাবিক জীবন-যাপন সম্পূর্ণভাবে বিপর্যস্ত হয়ে যাবে। আসুন, আমরা গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে ঐক্যবদ্ধ হই। কেবলমাত্র একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে প্রকৃত গণতান্ত্রিক সরকার গঠন হলেই গুম, অপহরণ, খুন ও বিচার বহির্ভূত হত্যার মতো মানবতাবিরোধী অপরাধ দূর হবে, জন-জীবনে স্বস্তি ফিরবে।  দলটির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, আওয়ামী লীগের ইতিহাসে বাকশাল, দুর্ভিক্ষ শুধু এগুলোই আছে। তাদের ইতিহাসে শুধু বিরোধী দলের ওপর নিপীড়ন, নির্যাতন, মানুষ হত্যা, বিচার বহির্ভূত হত্যা। এর জন্য বিএনপির প্রতি তাদের এত বিদ্বেষ।  রিজভী বলেন, ৭০ এর নির্বাচনে এ দেশের মানুষ আওয়ামী লীগকে সমর্থন করেছিল। জনগণ যে কারণে আওয়ামী লীগকে সমর্থন করেছিল তার প্রত্যেকটার সাথে তারা বিশ্বাসঘাতকতা করেছে। একাত্তরে যুদ্ধ হয়েছে কিন্তু তারা নেতৃত্ব দিতে পারেনি। এটা তাদের অনুশোচনা, সেটি ঢাকার জন্য তারা জিয়া পরিবারের সমালোচনা করে। যুদ্ধের জন্য পুরো দেশ প্রস্তুত, জনগণ তাদের ভোট দিয়েছে, তাদের নেতৃত্ব দেওয়ার কথা কিন্তু তারা নেতৃত্বে ছিল না।

স্বাধীনতার ঘোষণা দিলেন সেনাবাহিনীর একজন মেজর। এ জন্যই জিয়া পরিবারের প্রতি, জিয়াউর রহমানের প্রতি তাদের এত ক্ষোভ, এত জ্বালা। আজ জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয়তাবাদী প্রজন্ম ৭১ এর ১৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও আজকের বাংলাদেশ শীর্ষক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন রুহুল কবির রিজভী।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ