Rumman Ahmad - (Sylhet)
প্রকাশ ১২/০৬/২০২২ ০৯:৪৮পি এম

বাবার উদারতা আকাশের বিশালতার মতো

বাবার উদারতা আকাশের বিশালতার মতো
ad image
বাবা
রুম্মান আহমদ চৌধুরী

বাবাকে বলা হয় বটবৃক্ষ। অর্থাৎ বটবৃক্ষের মত তিনি সন্তানকে ছায়া প্রদান করেন। কিন্তু আমার কাছে বটবৃক্ষ শব্দ দিয়ে তুলনা করাটা যথাযোগ্য মনে হয় না। যদিও তুলনা তো তুলনা-ই। এটা আসল না।

আমার কাছে মনে হয় বাবা আকাশের মত। আমাদের মাথার উপরের বিশাল আকাশটার সাথে বাবার তুলনা দেয়া যায়। প্রত্যেকটা বাবার হৃদয় সন্তানের জন্য আকাশের মত বিশাল। সমুদ্রের মত অশেষ। বাতাসের মত নির্মল। বাবার স্পর্শটা প্রখর রৌদ্রে হিমশীতল পানির মত। বাবা সবসময় মাথার ছায়া, শান্তির আশ্র‍য়। ঘরের উপরের ছাদ যার নিচে নিশ্চিন্তে ঘুমান।
ঝড় তুফানের সময় যেমন বড় গাছ নিজে ভেঙে গিয়ে তুফান আটকায় সেভাবে জীবনের বড় বড় বিপদে বাবারা নিজেকে সামনে নিয়ে সবাইকে আগলে রাখেন।

তবে হ্যাঁ, মাঝে মাঝে দু'একটা নরপশু (বাবা) থাকে। আসলে ওরা বাবা হওয়ার যোগ্য না। শুধু যৌনশক্তি আছে আর একজন সঙ্গিনীর সাথে থাকার সুযোগে ওরা বাবা হয়েছে৷ বাবা হওয়ার মত উপযুক্ত মন তাদের নেই।কর্তব্যজ্ঞান নেই। এদের বিষয়টা আলাদা। আল্লাহ পাক আমাদেরকে এরকম যেন না বানান, আমিন।

আপনার বাবা সরল হতে পারেন। কম বুঝতে পারেন। না বুঝে বকা দিতে পারেন। কিন্তু জন্মের পর থেকে আপনার জন্য পরিশ্রম করেছেন তিনিই। তিনিই আপনাকে লালন করতে গিয়ে মনের চাওয়া স্বত্ত্বেও বসে থাকেন নি। আপনার এতো বড় হওয়ার পিছনে তার অবদান। আপনি যখন হাটতে শিখেননি তখন তিনি হাটা শিখিয়েছেন। তিনি কুলে করে অথবা কাঁধে করে ঘুরে বেড়িয়েছেন। আজকে বড় হয়ে এগুলো ভুলে যাবেন?

বাবা হবার পর থেকে একজন বাবা নিরলসভাবে খেটে যান সন্তানের জন্য৷ সন্তানের ভুল চলাফেরা, খারাপ ব্যবহার, বেয়াদবি তাকে দ্বায়িত্ব থেকে বিচ্যুত করে না। দ্বায়িত্ব আর মায়ার বেড়াজালে আটকা পড়ে জীবনকে বিলিয়ে দেন সন্তানের তরে। সন্তানের চতুর্পাশে সীমানাপ্রাচীর হয়ে তাকে আগলে রাখেন। শত লাঞ্চনা বঞ্চনা সহ্য করে যান আপনার আমার দিকে চেয়ে। নিজের স্বপ্ন বিসর্জন দেন সন্তানের জন্য৷ সারাজীবনের লালিত স্বপ্ন ভুলে গিয়ে কিভাবে সন্তানকে উপযুক্ত করে গড়ে তোলা যায়, ওর ভালো করার স্বপ্নে বিভোর হয়ে যান। কত ত্যাগ, কষ্ট ঘামের সাথে শেষ হয়ে যা কখনো দেখা যায় না। এজন্যই বুঝি আল্লাহর সন্তুষ্টি বাবার সন্তুষ্টির মধ্যে! বাবা নারাজ থাকলে ইবাদত আটকে থাকে!

দুনিয়ার মধ্যে বেশীরভাগ মানুষের ভুল অনেক। গুণ থেকে দোষ বেশী। বুদ্ধি কম, বুঝ কম। এরাও বাবা হয়। যদিও আমরা প্রত্যেকেই আশা রাখি বাবার মাঝে কর্তব্যনিষ্ঠা,ব্যক্তিত্ব,বুদ্ধিমত্তা, সাব্যস্ততা সব পাবো।সবাই হয়তো পাই না। তাই বলে অবহেলা করা যাবে না। কারো, তার একটা পরিচয় তিনি বাবা। তার পরিচয় ছাড়া আপনার পরিচয় প্রশ্নবিদ্ধ । তার পরিচয়েই আপনার সম্মান পাওয়া। বুক ফুলিয়ে হাটতে পারা।

পিতামাতা যদি অন্যায়ের কথা না বলেন তাহলে মানতে হবে। অন্যায় কিছু বললে বোঝাতে হবে। রাসুলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর পরে মা-বাবা এমন কেউ যাদের কথা বেশি গুরুত্ব সহকারে বলা হয়েছে। কোন উস্তাদ, পীর, বুযুর্গ মা-বাবার অগ্রবর্তী নন। তাদের দু'আ নিতে পারলে উভয় জাহান উজালা। পরে/তাদের অনুমতিতে পীর/হুজুর। এটাই কঠিন সত্য। তারা বুযুর্গ না হতে পারেন কিন্তু আপনার জন্য তারাই বড় বুযুর্গ।

মা-বাবা জুলুম/অন্যায় কিছু করলে ছবর, ছবর, ছবর।

মাওলা আমাদেরকে ভালো ব্যবহারের তাওফিক দাও।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ

MD hedaetul Islam - (Sirajganj)
প্রকাশ ২৮/০২/২০২২ ০৩:৫৫এ এম
MD hedaetul Islam - (Sirajganj)
প্রকাশ ০২/০৩/২০২২ ০৩:৪৩এ এম