মাসুম বিল্লাহ্ - (Bagerhat)
প্রকাশ ২০/০২/২০২২ ০১:১৭পি এম

সৎ ছেলে ও তাদের স্বজনদের নির্যাতন থেকে বাঁচতে সংবাদ সম্মেলন

সৎ ছেলে ও তাদের স্বজনদের নির্যাতন থেকে বাঁচতে সংবাদ সম্মেলন
ad image
বাগেরহাটের শরণখোলায় সৎ ছেলে ও তাদের পরিজনদের নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন উপজেলার উত্তর আমড়াগাছিয়া গ্রামের মৃত. হাছেন আলী হাওলাদারের স্ত্রী শাহিনুর বেগম (৫৫)। শনিবার দুপুরে শরণখোলা উপজেলা প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে শাহিনুর বেগমের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন তার কন্যা শরণখোলা সরকারী কলেজের শিক্ষার্থী মোসা. সুমি আক্তার।

লিখিত বক্তব্যে জানান, উপজেলার উত্তর আমড়াগাছিয়া গ্রামের মৃত. হাচেন আলী হাওলাদারের দুই সংসারের স্ত্রী-পূত্র-কন্যাদের মধ্যে জমি জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের দীর্ঘদিনের। আমার কন্যাকে নিয়ে আমার পূত্র প্রবাসী মনির হোসেনের বাড়িতে থাকি। গত ১০ ফেব্রুয়ারী আমার ছেলে মনিরের ভোগদখলীয় জমির ঝাড় থেকে বাঁশ কাটাকে কেন্দ্র করে উভয়ের মধ্যে তর্ক বিতর্ক সৃষ্টি হইলে আমাকে ও আমার কলেজ পড়ুয়া কন্যাকে বাড়ি ছেড়ে দিতে হুমকি ধামকি অব্যাহত রাখে। পরে ১২ ফেব্রুয়ারী দুপুরে আমার সৎ ছেলে ঢাকায় বসবাসকারী জামাল হাওলাদারের নির্দেশে অপর সৎ ছেলে নান্না হাওলাদারের নেতৃত্বে তার দুই পূত্র রাসেল হাওলাদার, মাসুম হাওলাদার, ইয়াসিন ফরাজীর ছেলে শহিদুল ফরাজী, মনির খলিফার ছেলে মেহেদী খলিফা, শহিদুল সওদাগরের স্ত্রী মঞ্জু বেগম, ও নাসির মাতুব্বরের স্ত্রী লিলি বেগম আমার ছেলের বাড়িতে প্রবেশ করে আমাকে ও আমার কন্যাকে বাড়ি ছেড়ে চলে যাবার হুমকি দেয়।

ওই সময় আমার কন্যা সুমি প্রতিবাদ করলে নান্নার দুই ছেলে তার চুলের মুঠি ধরে মাটিতে ফেলিয়া দেয় এবং তার পড়নের কাপড় ছিড়ে ফেলে শ্লীলতাহানী ঘটায় ও এলাপাথারি পিটিয়ে জখম করে আমি তার চিৎকার শুনিয়া মেয়েকে রক্ষা করিতে গেলে আমাকেও এলোপাথাড়ি পিটাইতে থাকে এবং শহিদুল ফরাজীর হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে আমার মেয়ের মাথায় আঘাত করিতে গেলে তা লক্ষভ্রষ্ট হয়ে আমার ডান হাতের বাহুতে লাগে ও রক্তাক্ত জখম হই। আমি বর্তমানে শরণখোলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছি। এ ঘটনায় আমার কন্যা সুমী আক্তার শরণখোলা থানায় একটি মামলা দায়ের করলে পুনারায় বিবাদীরা হুমকি ধামকি অব্যাহত রাখে এবং মামলা তুলে না নিলে আমার কন্যাকে খুন করার হুমকি দেয়। অন্যদিকে মামলার স্বাক্ষীদের স্বাক্ষ্য না দেয়ার জন্য ভয়ভীতি প্রদর্শণ করিতেছে। এছাড়া অবৈধ মালামাল দিয়া আমাকে ও আমার কন্যাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসাইয়া জেল খাটানোর ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। বর্তমানে আমি ও আমার কন্যা নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে আছি। তাই এসব দুবৃত্তদের কবল থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত নান্না হাওলাদারের মুঠোফোনে বারবার কল করা হলে তার স্ত্রী ফোন রিসিভ করলেও কোন বক্তব্য দিতে রাজি হননি। শরণখোলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. সাইদুর রহমান জানান, আসামীরা পলাতক থাকায় তাদেরকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে, দ্রুত তাদেরকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ