জাকারিয়া হোসেন হিমেল - (Gazipur)
প্রকাশ ১৭/০২/২০২২ ০১:০৭পি এম

গাজীপুরে ৩৫ নং ওয়ার্ডের সড়ক নদী-খালে পরিণত,ভোগান্তিতে হাজারো মানুষ

গাজীপুরে ৩৫ নং ওয়ার্ডের সড়ক নদী-খালে পরিণত,ভোগান্তিতে হাজারো মানুষ
ad image
গাজীপুরের ৩৫ নং ওয়ার্ডের পূর্ব কলমেশ্বর এলাকার খাইলকুর-সুলতান জেনারেল হাসপাতাল রোড নামে পরিচিত সড়কটি বর্তমানে খালে পরিণত হয়েছে। সড়কে যাতায়াত করেন ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কয়েকশ' শিক্ষার্থী, বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের প্রায় হাজার হাজার শ্রমিক এবং স্থানীয় বাসিন্দারা।কিছুদিন আগেই ইটনির্মিত পরে পিচডালাইয়ের সড়কটি ইট ও পিচ উঠে যেন খালে পরিণত হয়েছে। ঝুঁকি নিয়ে সিএনজি, ইজিবাইক, মটরসাইকেল, অটোরিকশা, অটোবাইক ও ভ্যান চলাচল করছে। দুর্ঘটনাও ঘটছে প্রতিনিয়ত। চরম দুর্ভোগে আছেন সড়কটি ব্যবহারকারী লোকজন।

গাজীপুরের ৩৫ নং ওয়ার্ডের পূর্ব কলমেশ্বর এলাকার চিহ্নিত খাইলকুর-সুলতান হাসপাতাল বা হান্নান-ফেন্সি রোড নামে পরিচিত এই সড়কের প্রায় অনেকখানি রাস্তা বেহাল দশায় প্রায় হাজার হাজার বাসিন্দার ভোগান্তি চরম আকার ধারণ করেছে। এক যুগেরও বেশি সময় ধরে সড়কটির এমন অবস্থা ছিলো পরে যদিও তা সংস্কার করা হয়, সংস্কারে কিছুদিন পরই  আবার সেই আগের মত রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে যায়।প্রায় প্রতিদিনই কোন না কোন দলের বড় বড় নেতারা রাস্তাটির সমস্যা দেখতে আসে, ছবি তুলে,মোবাইলে ফেসবুকে লাইভে দুঃখ প্রকাশ করে চলে যায় কিন্তু এখন পর্যন্ত কেউই রাস্তাটি ঠিক করার জন্য এগিয়ে আসেনি বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

রাস্তা খালে পরিণতস্থানীয়বাসীরা জানান, ‘আমাদের উৎপাদিত বিভিন্ন কৃষিপণ্য বিক্রির জন্য হাটবাজারে নিতে হয়। কিন্তু ভাঙাচোরা সড়কের কারণে ভ্যানচালকেরা যেতে চান না। কেউ যেতে রাজি হলেও এর জন্য অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হয়। দ্রুত সড়কটি সংস্কার করা দরকার।' এছাড়াও আরো আশে পাশের স্থানীয় ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন, বেহাল এই রাস্তার কারণে মার খাচ্ছে তাদের ব্যবসা, খরিদ্দার আসে না ময়লা পানির কারনে কিন্তু ঠিকই দোকানের ভাড়া দিতে হয়।। বর্ষাকালে রাস্তায় যাতায়াত করাটা বিপজ্জনক। আশপাশের অনেক রাস্তা পাকা করা হলেও এ রকম গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাকে ঠিক করা নিয়ে টালবাহনা করা হচ্ছে।
এক যুগেরও বেশি সময় ধরে সংস্কার না হওয়া এই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী বাসিন্দারা অতিষ্ঠ হয়ে গেছে। সংস্কারের নামে কয়েকবার সড়কটির মাপামাপি করা হলেও কাজের কোনও খবর নেই।

সরেজমিনে এলাকার কয়েকজন বাসিন্দার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর লোকজন এসে রাস্তাটি দেখে ও মেপে গেছে ঐ পর্যন্তই শেষ তার পর এখন পর্যন্ত তারা কেউই আসেনি তাদের সাথে আমাদের ৩৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুল আল মামুন মন্ডলও এসে সবাইকে শান্তোনা দিয়ে গেছেন যে খুব তারাতারি রাস্তার কাজ শুরু করা হবে কিন্তু এখন পর্যন্ত তার কিছুই করা হয়নি দিনে দিনে রাস্তাটির অনেক অংশে গর্ত হয়ে ছোট খালে পরিণত হয়েছে।যা দিয়ে গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।মাঝে মধ্যেই এই খালে প্রাইভেট কার,নোহার মত গাড়ি গুলো বন্ধ হয়ে পরে থাকে পানিতে।

রাস্তা খালে পরিণতভ্যানচালক আব্দুর রশীদ বলেন, 'ভাঙাচোরা রাস্তার জন্য বেশি মাল নেওয়া যায় না। এ ছাড়া ভ্যানও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পেটের দায়ে বাধ্য হয়ে এ রাস্তায় চলাচল করতে হচ্ছে।' পূর্ব কলমেশ্বর এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা বলেন, 'সড়কের বেহাল অবস্থার জন্য আমাদের অনেক ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। প্রায়ই স্লিপ কেটে ময়লা ও দুর্গন্ধযুক্ত পানিতে পড়ে গিয়ে জামা-কাপড় নষ্ট হয়ে যায়। ওই দিন স্কুল-কলেজ কামাই (অনুপস্থিত) দিতে হয়। যানবাহনে এ সড়ক দিয়ে চলাচল করলে কষ্ট হয়, সময়ও বেশি লাগে।'

৩৫ নং  ওয়ার্ড আওয়ামীযুবলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী দেলোয়ার হোসেন জানান, সড়কটি দিয়ে যাতায়াতে প্রায়ই নষ্ট হচ্ছে গাড়ি। স্থায়ীভাবে কোনও উন্নয়ন কাজ হচ্ছে না সড়কটিতে। আমাদের দাবি, সড়কটি যেন দ্রুত সংস্কার করা হয়। স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, 'পৌর কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা ও স্থানীয় কাউন্সিলরের গাফিলতির কারণে জনগুরুত্বপূর্ণ এই রাস্তাটির উন্নয়ন কাজ হচ্ছে না।' গাজীপুরের সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশলী বলেন, 'এই মুহূর্তে বরাদ্দ না থাকা ও অর্থ সংকট থাকায় রাস্তার উন্নয়ন করা সম্ভব হচ্ছে না। বরাদ্দ এলে প্রস্তাব অনুযায়ী সড়কটির সংস্কার কাজ শুরু করা হবে।'

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ