MD.KHALED MOSHARRAF SHOHEL
প্রকাশ ১৭/০২/২০২২ ০১:৫৮এ এম

বরগুনার বামনায় হাজতখানায় ছাত্রলীগ নেতার সেলফি নিয়ে তোলপাড়

বরগুনার বামনায় হাজতখানায় ছাত্রলীগ নেতার সেলফি নিয়ে তোলপাড়
ad image
আদালতের হাজতখানায় বরগুনার বামনা উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মোর্শেদ শাহরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক আল-আমিন হোসেন জনির সেলফি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। বুধবার (১৬ ফেব্রæয়ারি) দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে তিনটি ছবি ছাত্রলীগ সভাপতি তার ভেরিফায়েড ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করে লিখেন, নৌকার নির্বাচন করতে গিয়ে কারাবরণ করতে হলো আমাদের।

ছবিতে দেখা যায় প্রথম ছবিটি জেলা ও দায়রা জজ আদালতের হাজতখানার মধ্যে বসেই তুলেছেন সভাপতি শাহরিয়া, তার সাথে রয়েছেন সাধারণ সম্পাদক জনি। বাকি দুটি ছবির একটি তুলেছেন হাজতখানার মধ্যে থেকে, আর একটি ছবি আদালতের বিচারকের এজলাসের কাঠগড়ায়। এ বিষয়ে আদালতের কোর্ট ইন্সপেক্টর মারুফ আহমেদ বলেন, আদালতের বাইরে থেকে তার সমর্থকরা গোপনে ছবি তুলে নিয়ে যেতে পারেন। তবে, হাজতখানার ভেতরে মোবাইল নিয়ে সেলফি তোলার কোনো সুযোগ নেই।

এ সময় আদালতের হাজতখানার মধ্যে তোলা সেলফি তাকে দেখানো হলে- এ বিষয়ে তিনি বলেন, হাজতখানার দায়িত্বে যেসব পুলিশ সদস্যরা ছিলো, তাদের গাফিলতি থাকতে পারে। এ বিষয়ে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মামলার বাদী তারিকুজ্জামান সোহাগ বলেন, আসামিরা প্রভাবশালী হওয়ায় আদালতের এজলাস থেকে শুরু করে হাজতখানার মধ্যেও তারা মোবাইল নিয়ে সেলফি তুলেছেন।

ফেসবুকে আবার সেসব ছবি পোস্ট করেছেন। আমি এখন অনিরাপদ রয়েছি। অবশ্যই এসব বিষয় প্রশাসন বিবেচনা করবেন। উল্লেখ্য, প্রথম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনী প্রচারণার সময় বরগুনার বামনা উপজেলার বামনা সদর ইউনিয়ন পরিষদের স্বতন্ত্র প্রার্থী তারিকুজ্জামান সোহাগ ও বামনা উপজেলা ছাত্রলীগের মধ্যে কয়েক দফা সংঘর্ষ হয়।

উভয়পক্ষের অন্ততঃ শতাধিক কর্মী আহত হয়। সে সময় পুলিশের করা মামলায় কারাগারে যায় স্বতন্ত্র প্রার্থী সোহাগ। পরে তার স্ত্রীর সহায়তায় সেখানে থেকেই বামনা উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আল-আমিন হোসেন জনিকে প্রধান আসামি ও সভাপতি মোর্শেদ শাহরিয়াকে দুই নম্বর আসামি করে ২৭ জনের নামে মামলা করেন সোহাগ। সেই মামলায় আজ তাদের দুজনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত বামনার বিচারক মো. রাসেল মজুমদার।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ