Md. Jillur Rahman Russell - (Faridpur)
প্রকাশ ১৯/০১/২০২২ ০৮:২৯পি এম

ফরিদপুুরে আরামবাগ হাসপাতাল নানা অনিয়মের অভিযোগে বন্ধ ঘোষণা

ফরিদপুুরে আরামবাগ হাসপাতাল নানা অনিয়মের অভিযোগে বন্ধ ঘোষণা
ad image
ফরিদপুরে আল মদিনা প্রাইভেট হাসপাতালে অস্ত্রপচার করার সময় নবজাতকের কপাল কেটে ফেলার ঘটনার পর এবার নবজাতকের হাত ভেঙে ফেলার ঘটনা ঘটেছে। নবজাতকের হাত ভাঙার ঘটনাটি ঘটেছে ফরিদপুর শহরের পশ্চিম খবাসপুরে অবস্থিত আরামবাগ প্রাইভেট হাসপাতাল নামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে। এছাড়াও নানা অনিয়মের অভিযোগে হাসপাতালটি সময়িক বন্ধ করে দিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। ১৯ জানুয়ারি বুধবার। হাসপাতালটিতে ফরিদপুরের সিভিল সার্জন ডা. ছিদ্দিকুর রহমান ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট অভিযান পরিচালনা করেন।

এদিকে গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর ফরিদপুর শহরের পশ্চিম খাবাসপুরে অবস্থিত আরামবাগ প্রাইভেট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও ডাক্তারদের অবহেলার কারনে নবজাতকের হাত ভাঙার অভিযোগ দায়ের করেছেন স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ আরিফুল আলম সজল। তিনি মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) ফরিদপুর জেলা প্রশাসক ও ফরিদপুর সিভিল সার্জন বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। 

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ১৩ ডিসেম্বর ২০২১ অভিযোগকারী তার প্রসূতি স্ত্রীকে এই হাসপতালে ভর্তি করেন। ভর্তির পরপরই বাচ্চা ডেলিভারির জন্য অপারেশন থিয়েটারে সিজার (অপারেশন) করা হয়, কিন্তু অপারেশন চলাকালীন ডাক্তারদের অবহেলা বা গুরুত্ব না থাকায় নবজাতকের হাত অতিরিক্ত টানাটানির কারণে ডান হাতের কনুই এর জয়েন্ট ছুটিয়ে ফেলে।

হাসপাতাল থেকে বের হওয়ার সময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোন কিছু না জানানোর কারণে ভুক্তভোগীরা কিছু জানতে না পারায় স্বাভাবিক ভাবে ছাড়পত্র নিয়ে হাসপাতাল ত্যাগ করেন। পরবর্তীতে বাচ্চাটি ব্যাথায় অতিরিক্ত কান্নাকাটি করায় তারা শিশু বিশেষজ্ঞ খঃ ডাঃ মোঃ আব্দুল্লা হিস সায়াদ এর সাথে সাক্ষাত করেন। এক্সরে দেখে তিনি ল্যাব এইড হাসপাতালের ডাঃ সৈয়দ আসিফ উল আলম এর কাছে রেফার্ড করেন। অতপর ডাঃ সৈয়দ আসিফ উল আলম ঢাকা হেলথ এন্ড হোপ হাসপাতালে অধ্যাপক ডাঃ সারোয়ার ইবনে সালামের নিকট পুনরায় রেফার্ড করেন। বর্তমানে তার অধিনের সেই বাচ্চার চিকিৎসা চলছে। 

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ