Nazrul
প্রকাশ ১৮/০১/২০২২ ০৩:৩৩পি এম

বাবাকে নিয়ে ফিল্ম তৈরি করছেন শ্রীলেখা

বাবাকে নিয়ে ফিল্ম তৈরি করছেন শ্রীলেখা
ad image
অনেকদিন আগের কথা। দেবশঙ্কর হালদার সঞ্চালিত ‘হ্যাপি প্যারেন্টস ডে’তে অতিথি হয়ে এসেছিলেন শ্রীলেখা মিত্র ও তাঁর বাবা সন্তোষ মিত্র। সেই শোতেই অভিনেত্রীর বাবা বলেছিলেন, ‘আমি ছাদে গিয়ে বাবা বাবা করে ডাকতে চাই আর বলতে চাই দুধ দিয়ে যাও বাবা চা খাবে…’।

গত বছরই জুরিখ ও ভেনিস থেকে ঘুরে এসে বাবাকে চিরকালের মতো হারিয়েছেন শ্রীলেখা। এখন তিনিও ছাদে উঠে ‘বাবা বাবা’ বলে ডাকতে চান। আসলে এই ডাক সারাক্ষণই চলতে থাকে তাঁর অন্তরে। অভিভাবক হারানো সবসময়ই খুব কষ্টের। আর মেয়েদের কাছে তাঁর প্রথম হিরো বাবা।

কোনও কোনও ক্ষেত্রে তাঁর শেষ হিরো কিংবা একমাত্র হিরো। সেই বাবাকে হারিয়ে ফেলা হিরোবিয়োগ ছাড়া আর কিছুই নয়। ফলে কষ্ট যে আছে সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। সেই কষ্টকে অন্তরে চেপে নতুন কাজে মন বসাতে চাইছেন অভিনেত্রী।

২০২১ সালটা শ্রীলেখার কাছে প্রাপ্তি ও বিচ্ছেদের ছিল। ভেনিস আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের মঞ্চে একমাত্র ভারতীয় হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করে দেশে ফিরেই বাবাকে হারিয়েছিলেন। বেড়ানো ও সাফল্যের কোনও গল্পই বাবার শোনা হয়নি। এমনকী শ্রীলেখার দেখাও হয়নি বাবার সঙ্গে।

কলকাতার গণমাধ্যম TV9 বাংলাকে একথা বলতে বলতে কেঁদেই ফেলেছিলেন শ্রীলেখা। কিন্তু হাজার কষ্ট থাকলেও সেই কষ্ট থেকেই মুক্তি খুঁজে নিতে হয়। সেখানেই হয়তো হারিয়ে যাওয়া মানুষকে ফিরে পাওয়া যায়। যেমন ফিরে পেয়েছেন শ্রীলেখা। তাঁর পরিচালিত আসন্ন স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবিটি বাবাকে উৎসর্গ করেই তৈরি করছেন অভিনেত্রী। ছবিটি ছাদকে কেন্দ্র করে।

ছাদ নিয়ে চিত্রনাট্য। আলাপ আলোচনার পর শ্রীলেখা মনে মনে ঠিক করেছেন ‘…এবং ছাদ’-ই হবে সেই শর্ট ফিল্মের নাম। কেননা, ছাদই তাঁর গল্পের অন্যতম চরিত্র। TV9 বাংলাকে শ্রীলেখা বলেছেন, “এটা একটা ছাদের গল্প। সেই-ই প্রধান চরিত্র। সেই মেয়েবেলা থেকে আজকের ছাদ, স্কাইলাইন, সেই সঙ্গে মানুষের পরিবর্তন, মেয়েবেলার পরিবর্তন নিয়ে আমার ছবি। আমি নিজেও এখানে একটা ক্যামিও চরিত্রে অভিনয় করব। কিন্তু ঠিক করেছি একেবারে নতুন অভিনেতা-অভিনেত্রীদের নিয়ে কাজ করব।”

কথা অনুযায়ী কাজে নেমে পড়েছেন চিরকাল পজ়িটিভ থাকতে পছন্দ করা শ্রীলেখা। সম্প্রতি রেইকি করতে গিয়েছিলেন উত্তর কলকাতার বিভিন্ন এলাকায়। কাছের বন্ধুরাই ছিলেন সঙ্গী। বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখেছেন। খুঁজেছেন একটি আদর্শ ছাদ, যে ছাদ হয়ে উঠবে তাঁর নায়িকা। সেই ছাদ খুঁজতে গিয়ে উত্তর কলকাতার সরু গলিতে ক্রিকেট খেলেছেন শ্রীলেখা, পিঠে পুলিতেও মজেছেন। বলতে চেয়েছেন, ‘জিন্দেগি এক হ্যায়… যা সিমরন জি লে!’

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ