Ali azim - (Bagerhat)
প্রকাশ ২৯/১২/২০২১ ০৮:৪৪এ এম

Mongla: মোংলায় বেড়া দেওয়া নিয়ে মারপিট, মেয়ে দিয়ে মামলার হুমকি!

Mongla: মোংলায় বেড়া দেওয়া নিয়ে মারপিট, মেয়ে দিয়ে মামলার হুমকি!
ad image
বাগেরহাটের মোংলায় বেড়া দেওয়া নিয়ে মারধরের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (২২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় মোংলার নতুন কলোনিতে এ ঘটনা ঘটে। এতে ওই এলাকার আব্দুল মজিদ এর ছেলে মোঃ শামিম নামে একজন আহত হয়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ঘটনায় বুধবার (২৯ ডিসেম্বর) ঐ এলাকার সেকেন্দার আলীর স্ত্রী জাহানারা বেগম (৪৫), মোঃ নাজমুল এর স্ত্রী সোনিয়া বেগম (২৭), সেকেন্দার এর মেয়ে জান্নাতী আক্তার (২০) কে অভিযুক্ত করে মোংলা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যায় আনুানিক সাড়ে ৭টায় মোংলা উপজেলার আব্দুল মজিদ এর ছেলে মোঃ শামিম এর বাড়ির এলাকা বেড়া দেওয়া দেখে অভিযুক্তরা অকথ্য ভাসায় গালিগালাজ করে। এতে প্রতিবাদ করতে গেলে অভিযুক্তরা শামিমকে এলোপাথাড়িভাবে মারতে থাকে।

এতে শামিমের শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়। শামিমের ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে অভিযুক্তরা বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি ও জীবন নাশের হুমকি দিয়ে চলে যায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

স্থানিয়রা আরো অভিযোগ করে বলেন, জানু একজন মামলাবাজ প্রকৃতির মহিলা। তার সাথে কোন বিষয়ে কথা কাটাকাটি হলে সে তার মেয়ে দিয়ে মামলা দেওয়ার ভয় দেখায়। এই সুযোগে সে অনেক বেআইনি কাজকর্ম করে চলছে। এর কারণে এই এলাকায় বসবাস করা এখন বেশ কষ্টকর হয়ে পড়েছে। এর যন্ত্রনায় আমরা অতিষ্ঠ।

আমরা চাই এই মহিলাসহ তার পরিবারকে আইনের আওতায় এনে কঠিন বিচার করা হোক। তা নাহলে আমাদের মতন সাধারণ মানুষদের মিথ্যা মামলার সম্মুখিন হতে হবে। আমরা এলাকাবাসী এক হয়ে বাগেরহাট পুলিশ সুপার, মোংলা পৌর মেয়র ও মোংলা উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্কাসহ বিভিন্ন দপ্তরে জানুর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য গণস্বাক্ষরও দিয়েছি।যাতে করে আমরা এলাকাবাসী শান্তিতে বসবাস করতে পারি।

মোংলা পৌর ৬নং ওয়ার্ড আ'লীগের সভাপতি হাকিম সরদার বলেন, কিছুদিন আগেও এই মহিলা সাংবাদিকদের কাছে মিথ্যা তথ্য দিয়ে আমার নামেও একটি মিথ্যা সংবাদ প্রচার করায়। বন্দর কর্তৃপক্ষের জায়গা বরাদ্দ বা দখলে আমি কে? আমি শ্রমিকদের সরদার হিসেবে কাজ করি। আর ঐ দিন মারামারিতে আমি ছিলামও না, আমি ছিলাম জাহাজে কর্মরত। ঐ প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদও আমি জানিয়েছি।

স্থানিয় ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জি,এম, আল-আমিন বলেন, আমি যখন কাউন্সিলর ছিলামনা তখন থেকেই এই মহিলার নামে বিভিন্ন অভিযোগ আসতো, জাহানুর একজন মামলাবাজ প্রকৃতির লোক। ১নং ওয়ার্ডে থাকা অবস্থায় এসব করার কারণে তাকে বের করে দেওয়া হয়। তার মেয়েকে দিয়ে সাধারণ মানুষকে মামলার হুমকি দেয়। কিছু হলেই মেয়েকে দিয়ে শ্লীলতাহানির অভিযোগ দেয়। আমরা চাই এই মহিলাকে আইনের মাধ্যমে এই এলাকা থেকে বিতারিত করা হোক। বিচার মানি, তালগাছ আমার এই মহিলা এই প্রকৃতির লোক

এ বিষয়ে মোংলা পোর্ট পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আঃ রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জাহানারার বিরুদ্ধে অনেকে অভিযোগ করেছে। স্থানিয় কাউন্সিলর বিষয়টি তদারকি করছে।

এ বিষয়ে চানতে চাইলে জাহানারা বেগম বলেন, হ্য ঘটনা সত্য,আপনারা তদন্ত করে দেখেন!

মোংলা থানা অফিসার্স ইনচার্জ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম বলেন, ওই এলাকায় মারামারির ঘটনা শোনার সাথে সাথে পুলিশ পাঠানো হয়েছিলো। আমরা অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

ad image

সম্পর্কিত সংবাদ