মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১
  • সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম:
Azizur Rahman babu - (Shariatpur)
প্রকাশ ১৪/১০/২০২১ ০৬:৩৭পি এম

Politics: কর্মী - নেতা - নেতৃত্ব

Politics: কর্মী - নেতা - নেতৃত্ব
কর্মী সবাই হতে পারে কিন্তু নেতৃত্ব সবাই দিতে পারে না । প্রকৃত অর্থে যিনি নেতৃত্ব দেন তিনি হন নেতা। এ বিষয়ে অনেকের বহু মতামত থাকতে পারে । নেতৃত্বগুণ যদি নেতার মাঝে না থাকে তবে তিনি নেতৃত্বদান করতে পারেন না ।

রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নেতাকে বিচক্ষণ, চারিত্রিক সততা, শিক্ষিত, মার্জিত আচরণ, নির্লোভ, সর্বজনপ্রিয় মানুষটি হতে পারেন নেতা হওয়ার মত যোগ্যতা অর্জনকারী। বাস্তবতায় অনেকেই " নেতা " হওয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবেই লবিং, সমঝোতা চালিয়ে যান । কীভাবে " নেতা " হওয়া যায় ? যারা আর্থিক ভাবে সুবিধা সম্পন্ন তারাই নেতা হতে আগ্রহী হয়ে পড়েন বেশী । আসলে নেতা হওয়ার জন্য যথেষ্ট অভিজ্ঞতা প্রয়োজন ।

নব্য নেতারা পেছনের কর্মকাণ্ডের হিসেব নিকেশ করতে সংকোচবোধ করেন । তারা বর্তমানকেই বিবেচনা করেন বেশী। মানুষ যদি নিজের যোগ্যতার বিচার করেন তবে হয়ত এত সমস্যায় পড়তে হয় না। যার যত লবিং সাপোর্ট আছে তারাই পরবর্তীতে " নেতা " হওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেন ।

এইসব অযোগ্য নেতারা নেতৃত্বদানে বিফল হয়ে নিজের লাভের দিকে ধীরে ধীরে অগ্রসর হন । আস্তে আস্তে সেই নেতার নেতৃত্বগুন ব্যক্তি স্বার্থ চরিতার্থ করতে অপকর্মের নেটওয়ার্ক তৈরি হয় । বিভিন্ন অপরাধী কার্যক্রম চালু হয়। সেটি কমিশন ভিত্তিক বাটোয়ারা হয়ে একটি সিন্ডিকেট তৈরি করে। ভাইরাসের মত সমাজকে গ্রাস করে। এভাবে সমাজে চলতে থাকে নেতাদের লড়াই ।

নেতাদের লড়াইয়ে যখন কোন নেতার ভাগ বন্টনে কম বেশী হলেই প্রকাশ ঘটে অপরাধ। ফাস হয়ে যায় সকল কর্ম কৌশল । সমাজ ধিক্কার দেয়। বুদ্ধিজীবি মহল সমালোচনা মুখর হয়ে উঠেন। নিন্দায় নিন্দায় চৌদ্দগুষ্টি সয়লাব হন। এভাবে সমাজ হয় কলংকিত। নেতৃবৃন্দ হয়ে পড়েন কোণঠাসা । শান্তিপ্রিয় জনগণ আস্হা হারিয়ে ফেলেন। মুখ ফিরিয়ে নেন।

তাই জনগন চায় শান্তি এবং নিয়ম শৃঙ্খলা । সঠিক দিকনির্দেশনাই পারে সকল অপরাধ সংঘঠিত হওয়ার আগে প্রাইমারী ষ্টেজেই ধ্বংস করতে হবে । প্রোপার মনিটরিংয়ের মাধ্যমে মাঠপর্যায়ে বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে হওয়া চাই নিয়মতান্ত্রিক স্বচ্ছতা । সমাজ হবে কলংকমুক্ত । জীবনের বেড়ে উঠা হবে গৌরবজনক। গড়ে উঠবে সুন্দর সমাজ ।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ