রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১
রাসেল মাহমুদ - (Jashore)
প্রকাশ ২০/০৯/২০২১ ০৭:৪০পি এম

ঐতিহ্যবাহী রূপদিয়া ওয়েলফেয়ার একাডেমি চত্বর বৃষ্টির পানিতে নিমজ্জিত!

ঐতিহ্যবাহী রূপদিয়া ওয়েলফেয়ার একাডেমি চত্বর বৃষ্টির পানিতে নিমজ্জিত!
যশোর সদর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী "রূপদিয়া ওয়েল ফেয়ার একাডেমী চত্বর, প্রবেশপথ সহ পুরো মাঠ এখন বৃষ্টির পানিতে নিমজ্জিত। এছাড়া অতিরিক্ত বৃষ্টি হলে পানির স্তর বৃদ্ধি পেয়ে বিদ্যালয়ের মেঝে পর্যন্ত উঠে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে।

যশোর-খুলনা মহাসড়কের পাশে রূপদিয়া বাজার বাসষ্ট্যান্ড থেকে, বিদ্যালয়ে প্রবেশদ্বার অর্থাৎ মুল ফটক থেকে পুরো মাঠ এখন বৃষ্টিতে হাটুপানির সৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে দুর্ভোগের শেষ নেই এই দুই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। পানি নিষ্কাশনে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবক মহল।

সরেজমিনে যেয়ে দেখাযায়, বিদ্যালয়ের অভ্যান্তরে স্থানীয় শিশুদের বড়শিতে মাছ শিকারের দৃশ্য। অত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর বৃষ্টির পানিতে সৃষ্ট জলাবদ্ধতার কারণে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে প্রবেশ করতে চরম অসুবিধা পোহাতে হচ্ছে।

অত্র বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত ২ দিনের মুষলধারায় বৃষ্টির পানিতে বিদ্যালয়ের প্রবেশ পথ সহ খেলার মাঠজুড়ে হাঁটু পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।

শিক্ষার্থীরা বলছে, জমে থাকা পানি ভেঙে স্কুলে আসা-যাওয়ায় বেশ ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে এছাড়া এরই মধ্যে অনেকে পানিবাহী জনিত রোগে আক্রান্ত হয়েছে। বিদ্যালয় অভ্যান্তর জলমগ্ন থাকায় মশারও উপদ্রব বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা চাই ভবিষ্যতে ঐতিহ্যবাহী এই বিদ্যালয়ে যেন পানি না জমে, তার স্থায়ী সমাধান করা হোক।

রূপদিয়া ওয়েল ফেয়ার একাডেমীর প্রধান শিক্ষক বিএম জহুরুল পারভেজ জানান, অত্র বিদ্যালয়ে মাধ্যমিক ও কিন্ডারগার্ডেন পর্যায়ে ১৩'শ ছেলে-মেয়ে অধ্যায়নরত রয়েছে। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে প্রবেশের রাস্তা সহ পুরো মাঠ দুদিনের টানা বৃষ্টিতে সম্পূর্ণ তলিয়ে রয়েছে। বিদ্যালয়ের মাঠ'টি নিচু হওয়ায় সব পাশের পানি বিদ্যালয়ের এই মাঠে এসে জমা হয়।

ইতোপূর্বে বিদ্যালয়ের মাঠে সৃষ্ট জলাবদ্ধতা রূপদিয়া রেলস্টেশন দিয়ে নিষ্কাশনের অস্থায়ী ব্যবস্থা করা ছিল। বর্তমানে রেলপথ উন্নয়নের কাজ চলমান থাকায় সে রাস্তা বন্ধ রয়েছে। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নজরে নিয়ে বিদ্যালয়ের পানি নিষ্কাশনে একটি স্থায়ী সমাধানের ব্যাবস্থা করার দাবী সবার।

এ ব্যাপারে নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোদাচ্ছের আলী বলেন আমি পানিবন্ধী বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করেছি। সেখানকার জমা পানি নিস্কাশন ব্যবস্থা করে দ্রুতই শিক্ষার্থীদের কষ্ট লাঘব করার চেষ্টা করছি।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ