‘জনপ্রিয়তা পাওয়া যায়, কিন্তু তা ধরে রাখা কঠিন’

‘ঢাকা অ্যাটাক’ এদেশের আলোচিত ও বহুল প্রশংসিত একটি সিনেমা। গেলো কয়েক বছরের মধ্যে যে কটি সিনেমা জনপ্রিয়তা পেয়েছে এবং দর্শকদের হলমুখি করেছে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ তার অন্যতম। এই সিনেমায় অভিনয় করেই আলোচনায় আসেন অভিনেতা তাসকিন রহমান। তার মাধ্যমে অনেকদিন পর ঢাকার সিনেমা পায় একজন মেধাবী অভিনেতা। তারপর তাসকিন ব্যস্ত হয়ে পড়েন অন্য সিনেমায়। এক এক করে অনেক সিনেমা করছেন তিনি। আই নিউজ বিডিকে এক সাক্ষাৎকারে তাসকিন বলেন, জনপ্রিয়তা পাওয়া যায়, কিন্তু তা ধরে রাখা কঠিন।

সিনেমা নিয়ে কতোটা ব্যস্ত আছেন?

অনেকটাই ব্যস্ত সিনেমা নিয়ে। ‘শান’ শিরোনামে একটি সিনেমা করছি। পাশাপাশি, ‘মিশন একসট্রিম’ নামের নতুন আরও একটি সিনেমার শুটিং চলছে। এছাড়াও, মিডিয়া রিলেটেড কিছু ব্যস্ততা তো আছেই। অন্যদিকে, দীপংকর দীপনের নতুন সিনেমা ‘অপারেশন সুন্দরবন’র শুটিং শুরু করবো। দীপনের ‘ঢাকা অ্যাটাক’ দিয়েই সিনেমায় আমার পথচলা শুরু। তার সঙ্গে আবার কাজ শুরু করছি সেজন্য ভালো লাগা ও উত্তেজনা দুটিই রয়েছে। নতুন সিনেমার চরিত্রটি নিয়ে নিজেকে প্রস্তুত করছি।

প্রথম সিনেমা দিয়ে এতো দ্রুত তারকাখ্যাতি কম শিল্পীর বেলায়ই দেখা গেছে, সেদিক থেকে এখন আপনি সিনেমার জন্য কী ভাবনা ভাবছেন?

দেশের সিনেমার যে অবস্থা, তাতে করে একটি বছর সময় এখানে দিতে চাই। আমি বলছি না আর সময় দেবো না। কিন্তু, একটি বছর সময় খুব বেশি করে দিতে চাই। আমি তো অস্ট্রেলিয়ায় থাকতাম। সেটি কিন্তু একেবারে ছেড়ে আসিনি। নিজের দেশ ও অস্ট্রেলিয়া দুই জায়গাতেই থাকছি। আপাতত দেশেই বেশি থাকছি। সেটা সিনেমার জন্য। দেখি সিনেমার জন্য ভালো কিছু দিতে পারি কী না।

কেমন লাগে ঢাকা শহর, ব্যস্ত শহরের যানজট?

দারুণ প্রশ্ন। আসলে ঢাকা ভালো লাগে। এখানেই তো আমার সবকিছু। কিন্তু, জ্যামটা মেনে নিতে খুব কষ্ট হয়। জ্যামের কারণে কোথাও যাওয়ার শিডিউল ঠিক থাকে না। জ্যামের কারণে অনেক কিছু এলোমেলো হয়ে যায়। খুব ডিফিকাল্ট লাগে জ্যামটা। জ্যামটা না থাকলে ঢাকা হতো অসম্ভব সুন্দর একটি শহর।

শুটিংয়ের বাইরের সময়টা এখানে কিভাবে কাটান?

শুটিং ছাড়াও ব্যস্ত থাকি। টিভিসি করলাম। মুভি দেখি। প্রচুর মুভি দেখি। নতুন-পুরনো সব মুভি দেখি। একাও থাকি। কিছু ঘনিষ্ঠজন আছে তাদের সঙ্গেও কখনো কখনো সময় কাটাই। দেশের মুভিও দেখি। তবে, প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে তেমন একটা বের হই না।

রাতারাতি এতো জনপ্রিয়তা কম শিল্পীই পান, আপনি বিষয়টিকে নিয়ে ভেবেছেন কখনো?

ভেবেছি। দেখুন, জনপ্রিয়তা পাওয়া মানে আমি মনে করি কাজের প্রতি আমার দায়বদ্ধতা বেড়ে যাওয়া। কাজের প্রতি ভালোবাসাও বেড়ে গেছে। জনপ্রিয়তা পাওয়া যায়, কিন্তু তা ধরে রাখা কঠিন। ওটা আমি জানি। ওটা আমাকেই ধরে রাখতে হবে। এজন্য ডিসিপ্লিনটা দরকার। আমি শিল্প দিয়ে এখানে এসেছি, জনপ্রিয়তা পেয়েছি। সেই সিনেমা শিল্পটাকে আমি ভালোবাসি।

সবশেষ মুক্তি পাওয়া সিনেমা দুটি নিয়ে বলুন?

কিছুদিন আগে মুক্তি পায় ‘যদি একদিন’ সিনেমাটি। এটা তো সবার জানা। সবাই ভালো বলেছেন। অনেক মানুষ সিনেমাটি দেখেছেন। এটা ভালো লেগেছে। এরপর মুক্তি পায় আমার অভিনীত সবশেষ সিনেমা ‘বয়ফ্রেন্ড’। এটিও ভালো গিয়েছে। প্রথম করেছিলাম ‘ঢাকা অ্যাটাক’। ওটার কথা সবার জানা। এরপর মুক্তি পায় ‘সুলতান’।

মতামত দিন

avatar