গোপালগঞ্জে দু’পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থী নিহত

ঘটনাস্থল দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে সাবেক এক ইউপি সদস্যের ছোড়া গুলিতে সে মারা যায় বলে অভিযোগ করেছেন স্বজনরা

গোপালগঞ্জে বিবাদমান দুটি পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে রনি হাওলাদার (১৫) নামে এক কিশোর নিহত হয়েছে। আসন্ন মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল তার। এই সংঘর্ষের ঘটনায় আহত হয়েছেন ১০ জন।

বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) সকাল ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত সদর উপজেলার করপাড়া ইউনিয়নের বনগ্রাম মধ্যপাড়া গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। নিহত রনি ওই গ্রামের আনোয়ার হাওলাদারের ছেলে। সে পাশ্ববর্তী বলাকইড় গ্রামের আজাহারিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিল।

এই ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

পুলিশ জানায়, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বনগ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আজিজুর শেখ ও মাতব্বর নতুন মোল্লার মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। সম্প্রতি নতুন মোল্লাকে মারধর করে আজিজুরের লোকজন। যার জেরে বৃহস্পতিবার সকালে গ্রামের একটি দোকানের বেঞ্চে বসাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের লোকজনের কথা কাটাকাটি একপর্যায়ে গড়ায় সশস্ত্র সংঘর্ষে।

আর শিক্ষকের কাছ থেকে পড়ে ঘটনাস্থল হয়ে বাড়ি ফিরছিল রনি। স্বজনদের অভিযোগ, সংঘর্ষের মধ্যে সাবেক ইউপি সদস্য আজিজের ছোড়া গুলিতে গায়ে লেগে মারা যায় সে।

রনির বাবা আনোয়ার হাওলাদার বলেন, “আমার ছেলে প্রাইভেট পড়ে বাড়ি ফিরছিল। পথিমধ্যে আজিজ মেম্বরের বাড়ির সামনে দু’পক্ষের সংঘর্ষের মাঝে পড়ে গেলে আজিজ আমার ছেলেকে গুলি করে হত্যা করে। আমি এই হত্যাকাণ্ডের বিচার চাই।”

গোপালগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এএসপি সার্কেল মোহাম্মদ সানোয়ার হোসেন বলেন, বনগ্রামে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্রে করে দু’পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনায় এক ছাত্র মারা গেছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এলাকার পরিস্থিতি এখন শান্ত। পুলিশ অপরাধীদের গ্রেফতারের অভিযান শুরু করেছে।

এদিকে, ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছেন অভিযুক্ত সাবেক ইউপি সদস্য আজিজ। তার ভাইয়ের স্ত্রী বেবি বেগম জানান, সংঘর্ষের ঘটনার পর আজিজ ও তার পরিবারের লোকজন পালিয়ে গেছে। বিক্ষুব্ধরা তার বাড়িতে ভাংচুর ও লুটপাট করেছে।

মতামত দিন

avatar