খালেদা জিয়ার মুক্তির সংবাদকে মুখ ফসকে ‘মৃত্যু সংবাদ’ বললেন রিজভী!

খালেদা জিয়ার মুক্তির সংবাদকে মুখ ফসকে ‘মৃত্যুর সংবাদ’ বলেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। সরকার খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্তের কথা মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) বিকেলে সংবাদ ব্রিফিংয়ে জানান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। মন্ত্রী এই ঘোষণা দেয়ার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে মুখ ফসকে ‘মৃত্যুর সংবাদ’ বলেন রিজভী। তবে পরক্ষণেই ভুল শুধরে বলেন, মুক্তির সংবাদ।

খালেদার মুক্তির সিদ্ধান্তের পর রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ছিলেন রিজভী। সেখানেই সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

এসময় রিজভী বলেন, বিএনপি’র যারা নেতাকর্মী রয়েছেন তাদের এবং দেশবাসীকে আমরা শান্ত থাকতে বলব। এই মহাদুর্যোগের মধ্যে মানুষের যাতে কোনো ধরণের কোনো অসুবিধা না হয়, তারা যাতে কোনো ধরণের কষ্টের মধ্যে না থাকে, সেই বিষয়টা তারা দেখবেন।

তিনি আরও বলেন, বিএনপি’র নেতাকর্মীসহ সারা দেশের মানুষকে বলব তারা দেশবাসী বেগম খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া করবেন, তারা করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তির জন্য দোয়া করবেন।

বিএনপি’র চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া প্রায় ২ বছর ১ মাস ১৬ দিন ধরে কারাগারে রয়েছেন এবং হাসপাতালে রয়েছেন প্রায় এক বছর ধরে, আজকের এই মুক্তির সিদ্ধান্তকে আপনারা কীভাবে দেখছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে রিজভী বলেন, আমি ইতিবাচক হিসেবে দেখছি। আমরা মনে করি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে যে কারণে সাজা দেয়া হয়েছে তার কোনো ভিত্তি ছিল না, তার সারবত্তা ছিল না। আজকে সরকারের শুভ বুদ্ধির উদয় হয়েছে, এটাকে আমরা মনে করি এটা একটা ইতিবাচক দিক।

তিনি বলেন, এর পাশাপাশি আমরা এটাও বলব, আমাদের নেতাকর্মী, দলের নেতাকর্মী, দেশবাসী তাদের প্রিয়নেত্রীর এই মৃত্যুর সংবাদে, এই মুক্তির সংবাদে, এই মুক্তির সংবাদে সংযত থাকবেন। এবং যে মহামারী বিস্তার লাভ করেছে সেখান থেকে যাতে বিস্তার লাভ না করে, এটা যাতে দ্রুত অপসারিত হয় সে ব্যাপারে তারা আল্লাহর কাছে দোয়া করবেন।

এর আগে বেগম জিয়ার মুক্তির বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, বিদেশে গমন না করার শর্তে প্রধানমন্ত্রীর আদেশে খালেদা জিয়ার দণ্ডাদেশ ছয় মাসের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। এ সময় তাকে বাসায় থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। বেগম খালেদা জিয়ার বয়স বিবেচনায় মানবিক কারণে সরকার সদয় হয়ে দণ্ডাদেশ স্থগিত রাখার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, হাসপাতালে গিয়েও তিনি চিকিৎসা নিতে পারবেন। তবে তাকে ঢাকার নিজ বাসায় থেকেই চিকিৎসা নিতে হবে এবং এই সময় তিনি বিদেশ যেতে পারবেন না। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাকে মুক্তি দিলেই এ আদেশ কার্যকর হবে।

মতামত দিন

avatar