আজ উইকেটের পেছনে ক্যারি-ধোনি লড়াই

আজ উইকেটের পেছনে ক্যারি-ধোনি লড়াই

চলতি বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া দলে উইকেটকিপার-কাম ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলছেন অ্যালেক্স ক্যারি। লড়াকু মানসিকতা এবং নেতৃত্ব গুণের কারণে ২৭ বছর বয়সী ক্যারি কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গারের ডান হাতে পরিণত হন এবং এই বিশ্বকাপে বিস্ময়করভাবে অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চের ডেপুটির দায়িত্বও পেয়ে যান তিনি। অন্যদিকে আজ বিশ্বকাপের ১৪তম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হচ্ছে ‘ক্যাপ্টেন কুল’ খ্যাত মহেন্দ্র সিং ধোনির ভারত। দ্বাদশ বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সাউদাম্পটনে ১৫ বল হাতে রেখে ৬ উইকেটের সহজ জয় পায় কোহলি বাহিনী।

সে ম্যাচে উইকেটের পেছনে থেকে এন্ডলি ফেলুকাওয়াকে স্ট্যাম্পিং আর ব্যাট হাতে ২ চারে ৩৪ রান করেন ধোনি। আজকে ভারত নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে মাঠে নামছে। লন্ডনের দি ওভালে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায়।
ক্রিকেটে একজন অধিনায়ক হিসেবে যা যা অর্জন করা সম্ভব, তার প্রায় সবটাই করে দেখিয়েছেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। যার নেতৃত্বে ভারত ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপ জয় করে। টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় বললেও সীমিত ওভারের ক্রিকেটটা এখনো খেলে যাচ্ছেন তিনি।

উইকেট-রক্ষক হিসেবে অ্যাডাম গিলক্রিস্টের ১৭২ রানের পর বিশ্ব রেকর্ড গড়েন ধোনি। এ ছাড়া ধোনির ব্যাটিং গড় একদিনের ক্রিকেটে উইকেট-রক্ষকদের মধ্যে সর্বোচ্চ। সপ্তম ব্যাটসম্যান হিসেবে শন পোলকের গড়া রেকর্ড ভেঙে ধোনি ১৩৯ রানের ব্যক্তিগত ইনিংস করেন। এ ছাড়া ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২ সেপ্টেম্বর, ২০০৭ তারিখে অনুষ্ঠিত খেলায় ৬টি আউটে (৫টি ক্যাচ ও ১টি স্ট্যাম্পিং) অবদান রেখে ধোনি ভারতীয় উইকেট-রক্ষক হিসেবে ১ম এবং অ্যাডাম গিলক্রিস্টের সঙ্গে যৌথভাবে বিশ্ব রেকর্ডধারী খেলোয়াড়ের মর্যাদা পান।

ওদিকে অস্ট্রেলিয়ার সহ-অধিনায়কের দায়িত্ব পেয়ে কোচের আস্থার প্রতিদান দিতে কার্পণ্য করেননি অ্যালেক্স। দ্বাদশ বিশ্বকাপ আসরে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে নটিংহ্যামে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে মাত্র ৭৯ রানে পাঁচ উইকেট হারিয়ে লজ্জায় পড়তে যাচ্ছিল অস্ট্রেলিয়া। সেই অস্ট্রেলিয়াকে খাদ থেকে টেনে তোলেন দলটির সাবেক অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ, অ্যালেক্স ক্যারি ও কোল্টার নাইল।

এই ৩ জনের প্রচেষ্টায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৪৯ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৮৮ রানের লড়াকু স্কোর গড়তে সক্ষম হয় অজিরা। শেষ পর্যন্ত ১৫ রানে জয় পায় তারা। ঐ ম্যাচে ক্যারি খেলেন ৫৫ বলে ৪৫ রানের ইনিংস। গ্লাভস হাতে ক্যারির দক্ষতার ব্যাপারে কোনো দ্বিধা না থাকলেও বিশ্বকাপে অজিদের ব্যাকআপ উইকেটকিপারের অভাবের বিষয়ে তারা শঙ্কিত। কেননা, ক্যারি যদি ইনজুরিতে পড়েন তাহলে হ্যান্ডসকম্ব হতো তার ব্যাকআপ। কিন্তু স্টিভেন স্মিথ নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে দলে ফেরায় পিটার হ্যান্ডসকম্বকে জায়গা দিতে পারেননি নির্বাচকরা। এটাই তাদের একমাত্র দুর্বলতার জায়গা।

Comments

comments